সর্বশেষ সংবাদ

দুদকের অনুসন্ধান ষড়যন্ত্র দেখছেন বিএনপি নেতারা

বিএনপির সিনিয়র আট নেতাসহ ১০ জনের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে সন্দেহজনক লেনদেনের কথিত তথ্য অনুসন্ধান
করছে দুর্নীতি দমন কমিশন। এ নিয়ে তথ্য চেয়ে গতকাল সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে চিঠি দিয়েছে কমিশন। গতকাল দুদকের উপপরিচালক সামছুল আলম সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোতে আলাদা আলাদা চিঠি পাঠিয়েছেন। বিষয়টি কাল্পনিক অভিযোগে রাজনৈতিক হয়রানিমূলক বলে প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপি। তালিকায় নাম উঠে আসা বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন, দুদকের এই অভিযোগ সম্পূর্ণ বানোয়াট, মিথ্যা, ভিত্তিহীন এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত। বিএনপি নেতাদের চাপে রাখতেই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ নিয়েছে দুদক।

এটা সরকারের নোংরা রসিকতা। নেতারা বলছেন, আনুষ্ঠানিক চিঠি পাওয়ার পর তারা এ ব্যাপারে তাদের জবাব দেবেন। উল্লিখিত তালিকায় উঠে আসা নেতারা হলেন- বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খান, আবদুল আউয়াল মিন্টু, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল, নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল ও মোরশেদ খানের ছেলে ফয়সাল মোরশেদ খান।
দুদক বিস্তারিত প্রকাশ করুক: মোশাররফ
বিএনপি স্থায়ী কমিটির ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, দুদককে দিয়ে হয়রানি করানোর জন্য সরকার আমাদের নামে অভিযোগ তুলেছে। এ অভিযোগ বানোয়াট ও মিথ্যা কল্পকাহিনী। দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে তারা হীন প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। আমরা এসবের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তিনি বলেন, অভিযোগে বলা হয়েছে- ডাচ্‌্‌-বাংলা ব্যাংকে আমার অ্যাকাউন্ট থেকে ২১ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। কিন্তু ওই ব্যাংকে আমি ও আমার পরিবারের কারো কোনো অ্যাকাউন্ট নেই। দুদক যে মিথ্যা তথ্য দিয়েছে আমি তাদের অনুরোধ করবো কোন অ্যাকাউন্টে, কোন ব্রাঞ্চে, কবে কখন কত টাকা উত্তোলন হয়েছে। এমনকি কত টাকা স্থিতি আছে তা বিস্তারিত প্রকাশ করা হোক। তিনি বলেন, বাংলা ইনসাইডার নামের অনলাইন নিউজ পোর্টালে এর আগে আমার নামে একই ধরনের অভিযোগ করা হয়েছিল। তিনি বলেন, যখন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন বেগবান হচ্ছে, ব্যাংক লুট, শেয়ারবাজার লুট ও স্বৈরাচারী নামে বিশ্বে যখন স্বীকৃতি পাচ্ছে তখন জনগণের দৃষ্টি সরাতে সরকার এগুলো করছে।
পেছনে অসৎ উদ্দেশ্য আছে: আব্বাস
বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, দুদক আমাদের বিরুদ্ধে নতুন করে অনুসন্ধান চালাচ্ছে বলে শুনলাম। একটি ভিত্তিহীন ওয়েব পোর্টালে প্রকাশিত খবরকে গুরুত্ব দিয়ে কেন দুদক এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেটা দুদক ভালো জানে। আমার বক্তব্য হচ্ছে, আমাদের ওপর অহেতুক চাপ সৃষ্টি করতেই দুদকের মাধ্যমে এটা করছে সরকার। এর পেছনে নিশ্চিতভাবেই একটি অসৎ উদ্দেশ্য রয়েছে। মির্জা আব্বাস বলেন, আমার প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা রাজনীতিকরা যদি এত খারাপ হই তাহলে দেশের চোর-বাটপাররা কী ভালো? আমাদের নিয়ে যদি পুলিশ, দুদক, আদালত এত ব্যস্ত থাকে তাহলে সাধারণ মানুষের কী হবে?
এটি সরকারের নোংরা রসিকতা: নজরুল
বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমার নামে যত টাকার অভিযোগ করা হয়েছে এত টাকা আমার জীবনে কোনো দিন লেনদেন করিনি। সরকার সম্পূর্ণ রাজনৈতিক কারণে এই অভিযোগগুলো করেছে। যারা নির্বাচন করবে এবং আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এমন নেতাদের বেছে বেছে এই তালিকায় এনেছে। তবে এগুলো করে কোনো লাভ হবে না। আন্দোলন ও নির্বাচন থেকে কোনোভাবেই সরিয়ে রাখা যাবে না। তিনি বলেন, আমার ভাবতে অবাক লাগছে আওয়ামী লীগের মতো এত বড় একটি দল কিভাবে এমন কাজ করে। কর্মকাণ্ড দেখে মনে হচ্ছে তারা পাগল হয়ে গেছে। আমার নামে ৭ কোটি টাকা লেনদেনের তথ্য দেয়া হয়েছে। এটা একটা নোংরা রসিকতা। তিনি বলেন, আজ দুদক যে অভিযোগ করছে একই অভিযোগ কিছুদিন আগে বাংলা ইনসাইডার করেছে। আমার প্রশ্ন হলো তারা দুদকের আগে গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট পায় কীভাবে। সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এটা বড্ডো বাড়াবাড়ি হয়ে যাচ্ছে।
২৫টি পোর্টালের মাধ্যমে অপপ্রচার চালাচ্ছে সরকার: খসরু
বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সরকার সমস্ত ব্যাংকগুলো লুট করে জনগণের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে মিথ্যাচার করছে। আওয়ামী লীগ বাংলা ইনসাইডারের মতো ২৫টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল তৈরি করে আমাদের অপপ্রচার চালাচ্ছে। ফেক নিউজ প্রচার করছে। এখন যে মিথ্যাচার দেখছেন, সামনে আরো মিথ্যাচার দেখতে পাবেন। কষ্ট হচ্ছে এজন্য যে, দুদকের মতো স্বাধীন প্রতিষ্ঠানকেও ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে। তারা এই কাজটি করছে শুধু ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য। একটি দেশ তখন ধ্বংস হয় যখন সে দেশের স্বাধীন প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করা হয়।
দুদকে সব হিসাব দেয়া আছে, তদন্ত করে দেখুক: মোরশেদ খান
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খান বলেন, আমি জানি না কেন বা কীসের ভিত্তিতে দুদক নতুন করে এ অনুসন্ধান শুরু করেছে। আমার সব হিসাব তো দুদকে দেয়া আছে। আমার বিরুদ্ধে তো মামলাও চলছে। যে মামলা একবার কোয়াশমেন্ট হলো, একবার ফাইনাল রিপোর্ট দিলো; সেটাও নতুন করে অনুসন্ধান করছে। দুদক তদন্ত করে দেখুক তারা কী পায়। যাই হোক, আমি এখনও দুদকের চিঠি পাইনি। দেখি, দুদক কি চায়? তবে বাংলাদেশের মানুষ বুঝতে পারছে কেন দুদক এসব করছে।
সরকারের সঙ্গে ব্যবসা করিনা, দুর্নীতির সুযোগ কই: মিন্টু
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু বলেন, বাংলা ইনসাইডার নামে একটি অখ্যাত অনলাইন পোর্টালে কি খবর প্রকাশ হয়েছে সেটাকে আমলে নিয়ে দুদক নাকি অনুসন্ধান শুরু করেছে। এ ঘটনায় আমি রীতিমতো অবাক। স্টান্ডার্ড চাটার্ট ব্যাংকে লেনদেনের ব্যাপারে তাবিথের নাম এসেছে। সে ব্যাংকে তো আমাদের কোনো অ্যাকাউন্টই নেই। আমরা সেখানে কোনো দিন ব্যাংকিং করিনি। ন্যাশনাল ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট থাকলেও তেমন ব্যাংকিং করিনি। আমার অ্যাকাউন্ট আছে এসআইবিএল-এ। আমরা ব্যবসা করি, তাই ন্যাশনাল ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে এসআইবিএল-এ টাকার লেনদেন হতে পারে। এক ব্যাংক থেকে অন্য ব্যাংকে টাকার লেনদেন হতেই পারে, এটা তো অন্যায় কিছু নয়। আর আমি বা আমরা তো এত টাকা ক্যাশ হ্যান্ডেল করি না। মিন্টু বলেন, ২০০৭ সালে তৎকালীন সরকার আমাকে জেলে নেয়ার পর দুদক সাত দিনের সময় দিয়ে আমার সম্পদের হিসাব চেয়েছিল। আমরা একদিন সময় বাড়িয়ে নিইনি। সাতদিনের মধ্যেই আড়াইশ পৃষ্ঠার হিসাব দেয়া হয়েছে। তারপর কয়েকজন মেজর, পিডব্লিউডি, রাজউকের লোক, সাব রেজিস্ট্রারসহ ২৯ জন লোক আমার বাসাবাড়িতে মাপজোক করেছে। আমার সম্পদের হিসাব তন্ন তন্ন করে অনুসন্ধান করেছে। এক মাস অনুসন্ধানের পর তারা হাইকোর্টে একটি ১০ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনও দিয়েছে। সেখানে তারা পরিষ্কার বলেছে, আমার বিরুদ্ধে কিছু পাওয়া যায়নি। আবদুল আউয়াল মিন্টু বলেন, আমি তো কোনো দিন সরকারের সঙ্গে ব্যবসা করিনি। এ সরকার তো আমার নামই শুনতে পারে না। সরকারের সঙ্গে ব্যবসা না করলে আমার দুর্নীতি করার সুযোগ হলো কীভাবে? বরং এ সরকার যমুনা রিসোর্টের মতো আমার লিগ্যাল কিছু সম্পদ নিয়ে গেছে। আমি কষ্ট করে চলি, কিন্তু আমার ঋণ নেই। দেশের বাইরেও আমার কোনো সম্পদ নেই। মিন্টু বলেন, বাংলা ইনসাইডারের মতো অখ্যাত ওয়েব পোর্টালের ভিত্তিহীন খবরকে আমলে নিয়ে দুদকের এ অনুসন্ধান আমাদের হয়রানি করা ছাড়া আর কিছুই নয়।
আনুষ্ঠানিক চিঠি পাই, তারপর বক্তব্য দেব: তাবিথ
বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও বিগত ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে ধানের শীষের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেন, আমি এখনও তেমন কোনো চিঠি পাইনি। গণমাধ্যমে প্রকাশিত কিছু খবর দেখলাম। আগে আনুষ্ঠানিক চিঠি পাই, তারপর সেটা দেখে বুঝতে পারবো কেন, কিসের ভিত্তিতে এ অভিযোগ আনা হলো। তারপর আমি আমার বক্তব্য দেব। সূত্র : মানবজিমন