সর্বশেষ সংবাদ

সংসদ নির্বাচনে দলের বিদ্রোহীদের নিয়ে উৎকণ্ঠায় আ.লীগ

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য জোরেশোরে প্রচারণায় নেমেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। দলটির সভাপতি শেখ হাসিনা বিভিন্ন জেলা শহরে জনসভা করে নৌকা মার্কায় ভোট চাচ্ছেন। বর্তমান দলীয় এমপি এবং আগামীতে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা ঘরে ঘরে গিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন। নির্বাচনী প্রচারণার পাশাপাশি বিভিন্ন আসনের দলীয় বিরোধ ও কোন্দল মেটানোর চেষ্টা করছেন আওয়াামী লীগের শীর্ষ নেতারা।

তবে আগামী নির্বাচনে বিরোধীদলের প্রার্থীদের চেয়ে নিজ দলের বিরোধ এবং বিদ্রোহীদের নিয়ে উৎকণ্ঠায় রয়েছে আওয়ামী লীগ।২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম সংসদ নির্বাচনে প্রধান বিরোধীদল বিএনপি ও তাদের জোট শরিকরা অংশ নেয়নি। তিন’শ আসনের মধ্যে ১৫৪ টি আসনে বিনা ভোটেই বিজয়ী হয়েছিলেন আওয়ামী লীগ ও তাদের জোট শরিকরা। বাকি আসনগুলোর নির্বাচনে জাতীয় পাটির্, জাসদ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সঙ্গে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা লড়াই করেন। ১৬ টি আসনে জয়ী হয়েছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এদের মধ্যে ১৫ জনই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন। নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর তারা আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন।

দশম সংসদ নির্বাচনে ১৬ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হওয়া ছাড়াও প্রায় ৫০ টি আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়। রাজধানীতে ঢাকা-৬ আসনে জয়ী হন স্বতন্ত্র প্রার্থী হাজী মোহাম্মদ সেলিম। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন। ঢাকা-১৪ আসনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা এম এ মান্নান কচি। সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিলেন তিনি। আওয়ামী লীগের দূর্গ হিসেবে পরিচিত ফরিদপুর-২ আসন থেকে পরাজিত হন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ। সেখানে জয়ী হন দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মজিবুর রহমান চৌধুরী।

জানা গেছে, প্রায় আড়াইশ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় বিরোধ ও কোন্দল প্রকট হয়ে উঠেছে। দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশীদের ঘিরেই বিভিক্ত হয়ে পড়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। দলীয় মনোনয়ন না পেলেও সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হবেন এমন ঘোষণা দিয়েছেন কেউ কেউ। আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী বেশ কয়েকজন নেতা এই প্রতিবেদককে বলেন, দলের কাছে মনোনয়ন চাইব। যদি মনোনয়ন না পাই স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করব।

আওয়ামী লীগের দলীয় গঠনতন্ত্র অনুসারে জাতীয় নির্বাচনে দল মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী হলে কিংবা দলীয় প্রাত্রীর বিরুদ্ধে প্রচারণা চালালেই দল থেকে বহিস্কার হয়ে যাবেন। নবম সংসদে গাজীপুর -৪ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সিমিন হোসেন রিমির বিরুদ্ধে প্রার্থী হয়ে দল থেকে বহিস্কার হয়েছিলেন শহীদ তাজউদ্দীনের ভাই সাবেক মন্ত্রী আফসারউদ্দীন। কিন্তু দশম নির্বাচনে বিদ্রোহী কাউকেই বহিস্কার করা হয়নি। তাদেরকে দলে ফিরিয়ে নিয়েছে আওয়ামী লীগ।

দলীয় কোন্দল ও বিরোধ নিরশনের জন্য কঠোর মনোভাব প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত দলটির কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় তিনি নেতাদের সর্তক করে দিয়েছেন। আগামী নির্বাচনে বিদ্রোহীপ্রার্থী এবং বিরোধ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য পিযুষ ভট্টাচার্য্য বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বিশাল দল। এই দলে বিরোধ থাকাটা অস্বাভাবিক নয়। তবে আমরা চেষ্টা করছি বিরোধ মেটানোর। বিদ্রোহীপ্রার্থী যাতে কেউ না হন তা নিয়েও কাজ চলছে। মনোনয়ন প্রশ্নে দলীয় নেতারা শেখ হাসিনার সিদ্ধান্ত মেনে নেবেন বলে আমি বিশ্বাস করি। Amadershomoy