সর্বশেষ সংবাদ

‘ভেবেছিলাম পড়ার ভয়ে হোস্টেলে যেতে চাইছে না’


কক্সবাজারে দুজন স্কুল ছাত্রকে আটক করেছে পুলিশ- তারা দুজনই দশম শ্রেণীর ছাত্র। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ যে তারা একই স্কুলের সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রকে বলাৎকার করে আসছিলো।

কক্সবাজার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বলেন অভিযুক্ত দুজনকেই আটক করে তাদের বিরুদ্ধে বলাৎকারের মামলা দেয়া হয়েছে। খবর-বিবিসি

ওদিকে আক্রান্ত ছেলেটিকে এখন সদর হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে আছে।

সেখানকার চিকিৎসক শাহীন আব্দুর রহমান চৌধুরীকে বলেছেন গতকালই ওই কিশোরকে হাসপাতালে আনা হয়েছে এবং পরীক্ষা নিরীক্ষার পর দ্রুতই তারা পুলিশের কাছে তাদের প্রতিবেদন জানাবেন।

আক্রান্ত ছেলেটির বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে যে স্কুলের হোস্টেলে থেকেই পড়াশোনা করতো। সেখানেই আটক হওয়া দুই ছাত্র কিছুদিন ধরেই তাকে বলাৎকার করে আসছিলো।

আক্রান্ত ও অভিযুক্ত তিনজনই স্থানীয় একটি স্কুলের শিক্ষার্থী ও স্কুলের একটি এক কক্ষের হোস্টেলে তারা থাকতো।

আক্রান্ত কিশোরর মা বলেন ওই কক্ষে ৮/৯ জন শিক্ষার্থী থাকতো।

তিনি জানান, বেশ কিছু ধরেই তার সন্তান হোস্টেলে যেতে চাইতোনা এবং অন্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতো।

‘বিভিন্নভাবে ছেলেটি আমাকে বলতো কিন্তু আমি বুঝতে পারিনি যে তাকে এভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে। সে তার নানীকেও বলেছে যে ওখানে খারাপ ছেলেরা আছে’।

তিনি বলেন, ‘আমি ভেবেছি পড়ার ভয়ে ছেলেটা হোস্টেলে যেতে চাইছেনা। এবার এসে মোটেও যেতে চাইছিলোনা। সোমবার রীতিমত মারধর করে তাকে হোস্টেলে পাঠাই আমি’।

এরপর তার খালা হোস্টেলে গেলে সব কিছু প্রকাশ পায় এবং সেখানেই জানা যায় যে দশম শ্রেণীর দুজন শিক্ষার্থী এই কিশোরকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে অনেক দিন ধরেই যৌন নির্যাতন করে আসছিলো।

এরপর আক্রান্ত ছেলেটিকে বাড়ি নিয়ে আসা হয় ও সব জানার পর দশম শ্রেণীর ওই দু’শিক্ষার্থীকে পুলিশে দেয়ার ব্যবস্থা করেন স্থানীয় চেয়ারম্যান।

পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আক্রান্ত ছেলেটিকে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তিসহ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার ব্যবস্থা করেন।

ছেলেটির পরিবারর অভিযোগের প্রেক্ষাপটে মামলা করে পুলিশ।

তার মা বলেন, ‘আমার এক ছেলে এক মেয়ে। ছেলেটি খুবই ভদ্র ও শান্ত। যারা ছেলেটিকে এমনভাবে অত্যাচার করেছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই আমি’। rtnn