সর্বশেষ সংবাদ

নারীর অধিকার সম্পর্কে কোরআন কী বলে


বিশ্ববাপী একটি কমন ভুল ধারণা বিরাজমান যে, ইসলামিক আইন অনুযায়ী মুসলিম নারীরা ‘নিপীড়িত’।

কিছু ক্ষেত্রে এটি সত্য হতে পারে। তবে, কোরআন ও নবী করিম হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর বাক্যে এই ধারণা মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।

এই বছরের আন্তর্জাতিক নারী দিবসে, প্রকৃত সত্য এবং মুসলিম নারীদেরকে সম্মানিত করার মাধ্যমে এই আখ্যানটির পরিবর্তনের চেষ্টা করা হয়েছে।

এখানে নারীর অধিকার সম্পর্কে কোরআন ও ধর্ম কি বলে, তা তুলে ধরা হলো।

নারী ও পুরুষের অনুরূপ অধিকার রয়েছে।

পবিত্র গ্রন্থটিতে বলা হয়েছে: ‘… এবং পুরুষদের মতো নারীদেরও একই অধিকার রয়েছে…’ (পবিত্র কোরআন, ২: ২২৪)।

‘যে ব্যক্তি সৎকর্ম করে, পুরুষ হোক কিংবা নারী হোক এবং বিশ্বাসী কিংবা অবিশ্বাসী হোক, আমি অবশ্যই তাকে সুখী জীবন দান করব এবং তাদের কৃত কর্মের উপর তাদের প্রাপ্য পুরস্কার দেব। (পবিত্র কোরআন, ১৬:৯৭)।

মজার বিষয় হচ্ছে, প্রথম ধর্ম হিসেবে ইসলাম নারীদের তাদের নিজের এবং উত্তরাধিকার সূত্রে সম্পত্তি অর্জনের অধিকার প্রদান করেছে।

ইসলাম মেয়েদের শিক্ষা লাভের অধিকারকে একটি পবিত্র কর্তব্য বলে স্বীকৃতি দেয়।

হযরত মুহাম্মদ (সা.) এক বাণীতে বলেছেন, ‘জ্ঞান অন্বেষণ করা প্রত্যেক মুসলিম পুরুষ ও নারীর কর্তব্য।’

নারীদের তাদের সঙ্গী বেছে নেয়ার অধিকার রয়েছে।

নারীর সম্মতি ব্যতীত, কোনো বিবাহ চুক্তি বা আলোচনাকে অবৈধ বলে গণ্য করা হয়েছে।

মেয়ে শিশুকে অধিক গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনা করা।

নবী করিম হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ ‘যে ব্যক্তি তার দু’টো কন্যা সন্তানকে জন্ম থেকে শাবালক হওয়া পর্যন্ত যথাযথভাবে লালন পালন করে, শেষ বিচারের দিনে আমি তার সঙ্গে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠভাবে একত্রিত হবো।’

ইতিহাস বলছে যে, প্রাক-ইসলামি যুগে মেয়েদেরকে অত্যন্ত ঘৃণা করা হতো এবং কন্যা সন্তানের জন্মের খবরটি সবচেয়ে খারাপ খবর বলে মনে করা হতো। কোরআন অনুযায়ী, এই ধারণাটি নবী করিম হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত হয়েছিল।

‘তাদের একজন যখন একটি কন্যা শিশুর বাবা হয়, তখন তার মুখ অভূতপূর্বভাবে দুঃখের ছায়ায় ঢেকে যায়। লজ্জাজনক, তিনি লোকেদের কাছ থেকে নিজেকে লুকিয়ে রাখেন, কারণ তাকে খারাপ খবর দেয়া হয়েছে। এমনকি তিনি ওই কন্যা সন্তানকে বালুর ভিতর জীবন্ত কবর দেয়ার কথাও চিন্তা করেন। নিঃসন্দেহে তাদের এই বিবেচনা অত্যন্ত দুর্দশাগ্রস্ত।’ (কোরআন, ১৬: ৫৮-৫৯)

কোরআনের এক আয়াতে বলা হয়েছে, ‘কারো যদি কোনো কন্যা সন্তান থাকে এবং তাকে জীবন্ত কবর না দেয়া হয় কিংবা তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য না করা হয় কিংবা ছেলে সন্তানদের মতোই তাকে ভালবাসেন, তবে আল্লাহ তাকে জান্নাতে স্থান দিবেন।’

এছাড়াও, নবী করিম হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামও বলেছেন, ‘যদি কেউ তার কন্যা সন্তানদের জন্য কষ্ট সহ্য করে এবং তাদের সঙ্গে ভাল ব্যবহার করেন, তবে তারা জাহান্নাম থেকে তাকে আচ্ছাদন হয়ে রক্ষা করবে।’

ইসলাম স্বীকার করে যে নারীরা সম্মানের প্রাপ্ত।

কোরআনে বলা হয়েছেঃ ‘নারীদের উপর পুরুষের যেমন অধিকার রয়েছে, তেমনি পুরুষের ওপরও নারীদের অধিকার রয়েছে।’ [কোরআন ২: ২২৮]

মুসলিমদের উদ্দেশ্যে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ ‘নারীদের বিষয়ে আল্লাহকে ভয় কর।’ তিনি এও বলেছেন: ‘আরো বেশি সভ্য ও আরো বেশি সদয় মুসলিম হচ্ছেন তার স্ত্রী।’

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার মৃত্যুর আগে পুনরাবৃত্তি করে গেছেন, ‘নারীর প্রতি সদয় ও সহানুভূতিশীল হতে আমি সকলের প্রতি আদেশ দিচ্ছি।’

নারীদেরকে নির্যাতন বা তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ না করতে কোরআন পুরুষকে সতর্ক করে দিয়েছে।

‘হে ঈমানদারগণ! নারীদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাদের উত্তরাধিকারী থেকে বঞ্চিত করা তোমাদের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাদের সঙ্গে কঠোর আচরণ করা উচিত নয়। তাদেরকে আপনার দেয়া যৌতুক থেকে কিছু অংশ গ্রহণ করতে পারেন-যদি সে ব্যাভিচারের দায়ে দোষী হয়। বিপরীতভাবে, দয়া ও সমতার ভিত্তিতে তাদের সঙ্গে বাস করুন।’ [কোরআন ৪:১৯]

এক হাদিসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘মহৎ চরিত্রের অধিকারী সেই যে, ব্যক্তি নারীদের জন্য কল্যাণকর এবং মন্দ সেই যে তাদের অপমান করে।’

সবচেয়ে সম্মানিত ‘মা’।

অনেক অনুষ্ঠানে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে উদ্ধৃত করে বলা হয় যে, মায়ের অধিকার সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ।

আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত যে, একজন লোক আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে এসে জিজ্ঞাসা করলেন, ‘হে আল্লাহর রাসূল! আমার প্রতি দয়া ও মনোযোগের ব্যাপারে কার সবচেয়ে বেশি অধিকার রয়েছে?’, তিনি উত্তর দিলেন, ‘তোমার মা’ ‘তারপর কে?’ তিনি উত্তর দিলেন, ‘তোমার মা’। ‘তারপর কে?’ তিনি উত্তর দিলেন, ‘তোমার মা’। ‘তাহলে কে?’ তিনি উত্তর দিলেন, ‘তোমার বাবার।’

উল্লেখ: ৭ম শতাব্দীতে, সারা বিশ্বের অন্যান্য সমাজের নারীদের চেয়ে আরব ও ইসলামের প্রাথমিক যুগের নারীদের অধিক অধিকার ছিল।

আর এই সব কিছুই হচ্ছে হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর সংস্কারের ফসল।

লেখক: ইনেমেসিত উডোডিয়ং ‘পালস’ এর একজন সহযোগী কন্টেন্ট লেখক। তিনি ইংরেজি, মানবিক ডাইনামিক্স এবং মনোবিজ্ঞানের একজন গ্র্যাজুয়েট। তার আগ্রহ হচ্ছে আল্লাহ, ধর্ম, লেখালেখি, সঙ্গীত, বই ইত্যাদি। তার ইমেল: inemesit.udodiong@ringier.ng || টুইটার এবং ইনস্টাগ্রাম: @inemudodiong

‘পালস রেলিজিয়ন’ অবলম্বনে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*