সর্বশেষ সংবাদ

নিম্ন মানের উপকরণ ব্যবহারে দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে না সড়ক

ইট, বালু, বিটুমিন কিংবা খোয়া, সড়ক সংস্কারে দরকার এই চার উপকরণ। কিন্তু অভিযোগ আছে, যে মানের সড়ক সংস্কারের কথা তা অধিকাংশ সময় করা হয় না। দুই বা তার অধিক স্থানের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করে সড়ক। এর মাধ্যমে নিশ্চিত হয় পণ্য কিংবা মানুষের চলাচল। কিন্তু সড়ক নির্মাণ এবং তার স্থায়ীত্ব নিয়ে অভিযোগের অন্ত নেই। উপকরণ থেকে শুরু করে নির্মাণ কাজের সব ক্ষেত্রেই আছে দুর্নীতির অভিযোগ। দুদকের সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সংক্রান্ত প্রাতিষ্ঠানিক টিমে উঠে এসেছে এমন অনিয়মের চিত্র।

সড়ক নির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে খোয়া। প্রভাবশালিদের হস্তক্ষেপে গ্রেড ১ ইটের স্থলে নি¤œমানের ইট দিয়ে তৈরি হয় এই খোয়া।
দুদক মনে করে, এতে রাস্তার স্থায়ীত্ব কমে যায়, একইভাবে সড়ক নির্মাণে গ্রেড ১ ইট বাদ্ধ্যতামূলক থাকলেও অনেক ক্ষেত্রেই গ্রেড ২ এবং গ্রেড ৩ মানের ইট ব্যবহার করা হয়। টেন্ডারের শর্ত অনুসারে উন্নত বালি ব্যবহার না করে দেওয়া হচ্ছে নি¤œমানের বালি, যা কমিয়ে দেয় রাস্তার স্থায়ীত্ব।

মহাসড়কে ৬০-৭০ গ্রেডের বিটুমিন ব্যবহারের নিয়ম থাকলেও দেওয়া হচ্ছে ৮০-১০০ মানের বিটুমিন। ক্ষেত্রে গ্রেড মানের তারতম্য হলে ঠিকাদার প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে দুদক আইনে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

সিপিডি রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান বলেন, আমাদের সবচেয়ে বড় দুর্বলতা হচ্ছে, রাস্তা যখন তৈরি হচ্ছে তখনই এর গুণগতমানের জন্য যে উপাদান গুলো ব্যবহার হচ্ছে আমাদের প্রকল্পে যেভাবে দেওয়া ছিল সেইভাবে তৈরি হচ্ছে কিনা তা সেটা দেখার একটা সুনির্দিষ্ট দায়িত্ব এবং নিয়মিত ভিত্তিতে একটা রিপোর্ট থাকতে হবে।
শুধু উপকরনেই নয় সব ক্ষেত্রেই হয় অনিয়ম। সড়ক নির্মাণ কাজ শুরুর আগে রাস্তায় মাটি ভরাটের কাজেও দুর্নীতি হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে মাটি কম ফেলে নেওয়া হচ্ছে ভরাট করার বিল। নানা অজুহাতে বাড়ানো হয় প্রকল্পের সময়।

সাবেক অর্থ উপদেষ্টা, এ বি মির্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, দুর্নীতির অভিযোগের কারণে একসময় বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশর রোড সেক্টরে সুনির্দিষ্ট কিছু মামলা থাকার কারণে অর্থ সহায়তা বন্ধ করে দেয়। পরে সেই মামলা গুলো দুর্নীতি দমন কমিশনে পাঠিয়ে দিয়ে আমি বিশ্বব্যাংকের সাথে এসব মামলার সমাধান করি।

নি¤œমানের কাজ করে বহাল লডিং এর দোহাই দিয়ে দোষিরা পাড় হয়ে যাচ্ছে। ইচ্ছে মত ব্যবহার হচ্ছে প্রকল্পের কাজ।

অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, প্রকল্পে সব কিছু বলা আছে, নতুন করে কিছু বলার নেই, এখানেই বলা আছে ইঞ্জিনিয়ানকে কি করতে হবে। সেখানে যদি কোনো ব্যত্যয় ঘটে সেটা দেখার জন্য সংস্থা আছে।
ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্ত বিল দেওয়ার আগে কাজের পরিমান ও গুণগতমান সর্ম্পকে স্থানীয় জনগণের মতামত গ্রহণের সুপারিশ করেছে দুদক। rtnn

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*