সর্বশেষ সংবাদ

‘বয়সে কী আসে–যায়!’

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্যাপ্টেন মাশরাফির পারফরমেন্স এখনো মনোমুগ্ধকর। যার জীবনের প্রতিটি পরতে সংগ্রামের আবহে আবৃত। তার বয়সের ছাপ পারফরমেন্স দিয়ে বিচার করা যায় না।

কাল সকালে তার একটি নিমন্ত্রণ আছে, সেখানে যেতে পারবেন কি না, একটু অনিশ্চয়তায় মাশরাফি বিন মুর্তজা। নড়াইল থেকে তার প্রিয় নাহিদ মামা এসেছেন, যিনি বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ। তাকে নিয়ে কাল হাসপাতালে যেতে হবে মাশরাফিকে। মেয়ে হোমায়রাও অনেক দিন ধরে অসুস্থ। স্বাভাবিকভাবে মানসিকভাবে একটু বিচলিত বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক। মাঠের পারফরম্যান্সে যদিও বোঝার উপায় নেই, ভেতরে কতটা অস্থিরতার মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে তাকে!

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আজ সোমবার অসাধারণ একটা রেকর্ড হয়েছে মাশরাফির। প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার পর এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেট পাওয়ার রেকর্ডটি এখন তারই। এই বয়সে সবাইকে ছাড়িয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা পান কীভাবে? ‘বয়স’ শব্দটা শুনে মুচকি হাসলেন মাশরাফি। নামে কী আসে–যায়—এ প্রবাদের সঙ্গে মাশরাফি বলতে পারেন ‘বয়সে কী আসে–যায়!’

আক্ষরিক অর্থে এবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে যে বোলিং করেছেন, মনে হবে এ যেন সেই মাশরাফি, যিনি মাত্রই ক্যারিয়ার শুরু করেছেন। আজ সোমবার মিরপুরে খেলাঘরের বিপক্ষেও দারুণ বোলিং করেছেন, ৩২ রানে পেয়েছেন ৩ উইকেট। দল পেয়েছে ১৩৭ রানের বড় জয়। ধারাবাহিক দুর্দান্ত বোলিংয়ে এবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি তিনিই। ১৫ ম্যাচে নিয়েছেন ৩৮ উইকেট। ৪.৩৯ ইকোনমি বলছে মাশরাফিকে খেলতে কতটা বেগ পেতে হয়েছে ব্যাটসম্যানদের। একেকটি উইকেটে পেতে মাশরাফির খরচ হয়েছে ১৪ রান। এর মধ্যে অগ্রণী ব্যাংকের বিপক্ষে তো ‘ডাবল’ হ্যাটট্রিকই করলেন! প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার পর এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেটের রেকর্ডটি ছিল আবু হায়দারের (৩৫)। সেটিই আজ নিজের করে নিলেন বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক।
এই অর্জনে ম্যাচ শেষে অভিনন্দনের বৃষ্টিতে ভাসলেন। যদিও খুব বেশি আপ্লুত দেখাল না তাকে। তবে কীভাবে সম্ভব হলো এ রেকর্ড গড়া, সেটি বলতে আপত্তি নেই মাশরাফির, ‘লিগের শুরুতে জানতাম এ মৌসুমে পুরোটা খেলার সুযোগ আছে। যেহেতু টি-টোয়েন্টি খেলছি না। নিদাহাস ট্রফিতে যাওয়ার সুযোগ ছিল না। চিন্তা ছিল পরের ওয়ানডে সিরিজ আসার আগে প্রস্তুতি যেন ঠিকঠাক হয়। এই লিগটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এখনো পর্যন্ত সব ভালো যাচ্ছে। এটাই আমার কাছে বেশির গুরুত্বপূর্ণ।’

লিগের পুরোটা তো আরও বোলার খেলেছেন। মাশরাফির ধারেকাছেও কেউ নেই। ২৮ উইকেট নিয়ে দুইয়ে আছেন তিন বোলার—ফরহাদ রেজা, আসিফ হোসেন ও কাজী অনিক। অন্যদের সঙ্গে তার পার্থক্যটা হয়েছে কোথায়? এ প্রশ্নে মাশরাফি বিনয়ী। তবে এটি অস্বীকার করলেন না, পার্থক্য গড়ে দিয়েছে অভিজ্ঞতায়, ‘যদি আমার খেলার কথা বলেন, সে জায়গায় পার্থক্য তৈরি হয়নি। পার্থক্য তৈরি হয়েছে সবকিছু সামলানোর ক্ষমতায়। এটা মাঠের বাইরেও হতে পারে। জিম, রানিং হতে পারে। সবকিছু মিলিয়ে হয়। এটা অভিজ্ঞতার সঙ্গে সঙ্গে হবে। আপনি যখন দীর্ঘদিন খেলবেন, মাঠের পারফরম্যান্সে সেটা সহায়তা করবে।’

এই পার্থক্যটা একদিকে উদ্বেগেরও। মাশরাফির সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বী বোলারদের দূরত্ব এত বেশি কেন? বিশেষ করে তরুণদের পারফরম্যান্স যথেষ্ট উজ্জ্বল ছিল কি না, সে প্রশ্নও এসে যাচ্ছে। মাশরাফি অবশ্য ইতিবাচকভাবে দেখতে চান সবকিছু, ‘প্রতিটা খেলোয়াড় চায় তার দলের হয়ে নিজের সেরাটা দিতে। নেতিবাচক দিক না ভেবে ইতিবাচক দিক দিয়ে ভাবা উচিত। বিশেষ করে তরুণদের ইতিবাচক দিকগুলা তুলে ধরা উচিত। ভুল তো আমরা সিনিয়ররাও করি। ওদের ইতিবাচক দিক তুলে সেভাবে তাদের গাইড করা উচিত। যাতে দু-তিন-চার বছর পর তারা বাংলাদেশকে ভালোভাবে সেবা দিতে পারে।’

ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগটা স্মরণীয় হয়ে থাকবে মাশরাফির কাছে। রেকর্ড, সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি হওয়ার অর্জন তো আছেই। মাশরাফি তৃপ্ত, যেটা চেয়েছেন পেরেছেন সেটি করতে, ‘আমার জন্য ভালো সুযোগ ছিল নিজেকে তুলে ধরার। আমি যেটা চেয়েছিলাম, সেটা করতে পেরেছি। অনেক কিছুই নতুন করে করতে পেরেছি। আন্তর্জাতিক মানের না হলেও আমার আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সহায়তা করছে। আমার ব্যক্তিগত লক্ষ্য ছিল, আমি যেন ভালো ছন্দে থাকি, প্রস্তুতি যেন ভালো হয়। উইকেটসংখ্যা ব্যাপার না। যেটায় আমার মনোযোগ ছিল, এখন পর্যন্ত সেটা পেরেছি, এটাই বড় ব্যাপার।’
ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে তৃপ্ত থাকলেও মাশরাফি বলছেন, এখনো গুরুত্বপূর্ণ কাজটাই বাকি—আবাহনীর হয়ে শিরোপা জেতা।


* এখনো এক ম্যাচ হাতে আছে মাশরাফির rtnn

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*